Wednesday, November 11, 2009

হে রুদ্র আদেশ দাও / কাজী নজরুল ইসলাম

...

অগণিত মানবের শ্রান্তি-হীন
অসহায় অশান্ত- রোদন,ভেসে আসে মোর কানে
নিশীথের বাণীহীন নিস্তব্ধ অন্ধকারে
ধরণীর দশদিক হতে,
চমকিয়া উঠে মোর ধ্যানের কৈলাসে
মহামণি যোগিন্দ্র শীব।
কোটি শাখা বাহু মেলি আকাশের পানে
যেমন আশ্রয় মাগে বন তরুলতা
কালবৈশাখীর ঝড়ে,দূর্যোগে নিশীথে
পৃথিবীর মাতৃক্রোড়
সহস্র শিকড় দিয়া আঁকড়িয়া কাঁদে
দেশে দেশে কাঁদিছে মোর আত্মার আত্মীয়
আমারই স্রষ্টার সৃষ্ট জীব
সে কোন জন্মের মোর
ভূলে যাওয়া পুত্র কন্যা
পিতা মাতা ভাই বোন
তেমনি করুণ রবে আর্ত ঝংকার তোলে
তাহাদের বিপুল রোদনধ্বণি
হৃদয়ের নীরব তন্ত্রিতে
গভীর প্রশান্তি মোর উদ্বেলিয়া উঠে
সমাধি শয্যায় শুনি,জীবন্ত সমাধি ভীত
মানবের অসীম আকুল হাহাকার
সরোষে ভাঙ্গিতে চাই সমাধির কারা
তপস্যার বল্মীক স্তুপ
পরম একাকী যেই জন
রাখিয়াছে মোরে একাকী করিয়া
ছিন্ন করি সর্ব মানবের সঙ্গ হতে
উচ্চস্বরে ডাকি সেই মহাকালে
হে রুদ্র আদেশ দাও
বাহিরে আসার
দ্বারে মোর কাঁদে সর্বহারা
নিপীড়িত জনগণ আত্মীয় স্বজন
পাতাল তলের দৈত্য অসুর দানব
বাহিরিয়া আসিয়াছে ধরণীর সূর্য়ালোকে
মানুষের বেশ ধরি
হরিয়াছে মানুষের অধিকার
লুটিয়াছে সুখ শান্তি
টুটিয়াছে স্নেহ নীড়
হে রুদ্র আদেশ দাও
শান্তি স্বর্গ হতে টেনে দাও ফেলে
ধরণীর ধূলিতলে
আমারে মরিতে দাও
সর্বঅবমানিতের সাথে।
হেরিনু মৌন শীব মৃদু মৃদু হাসে
শক্তি সাথে অটল কৈলাসে
ধূর্জটির ললাটের বহ্নিশিখা মাঝে
জাগিছে যোগেশ্বরী
মহাশক্তি রক্তচামুন্ডা রুপ ধরি
যেন রক্ত মহাসিন্ধু
সেই প্রলয়ের রক্ত সিন্ধু ম্লান করি
উদিতেছে নব প্রভাতের সূর্য নারায়ণ
সংগ্রাম শশ্মানে আসে যেন
দলে দলে বিভূতি তিলক পড়ি
আঁধারের কারামুক্ত দেব ও সেনাদল
প্রণতি জানায় সবে
নব প্রভাতের নর নারায়ণে।
...

1 comment:

  1. কোন কাব্যগ্রন্থের কবিতা ?

    ReplyDelete